ইন্টারনেট জগত থেকে নিজেকে লুকিয়ে ফেলুন

একজন দক্ষ হ্যাকার হতে হলে প্রথমেই ইন্টারনেট জগত থেকে নিজেকে লুকিয়ে ফেলতে হবে। আপনি ইন্টারনেট জগতে ইচ্ছামত বিচরণ করবেন, যা ইচ্ছা তাই করবেন, কিন্তু আপনাকে কেউ খুঁজে পাবে না। অনেকটা ছোটবেলার লুকোচুরি খেলার মত। আপনি সবাইকে দেখতে পাবেন, কিন্তু আপনাকে কেউ দেখতে পাবে না। এরজন্য প্রথমেই জানা প্রয়োজন, ইন্টারনেট আপনাকে কিভাবে দেখে থাকে।

আপনি যখন ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন, তখন আপনি একজন ইউজার। ইন্টারনেট জগতে আপনি পরিচিত হবেন একজন ইউজার হিসেবে ইন্টারনেটেরই দেওয়া একটি এ্যাড্রেস থেকে। যে এ্যাড্রেসকে বলা হয় আইপি এ্যাড্রেস। একজন সাইবার এক্সপার্ট যদি আপনার আইপি এ্যাড্রেস কালেক্ট করতে পারে, তাহলে খুব সহজেই আপনাকে ট্রেস করে আপনার বাড়ির দরজায় কড়া নাড়তে পারবে। কাজেই প্রথমেই যদি আপনি এই আইপি এ্যাড্রেসকে লুকিয়ে ফেলতে পারেন, তাহলে কোন সাইবার এক্সপার্ট আপনাকে আর ট্রেস করতে পারবে না।

কিন্তু তারও পূর্বে জানতে হবে, আপনার আইপি এ্যাড্রেস ইন্টারনেটে যায় কিভাবে? আপনি নেট ব্যবহার করার জন্য কোন না কোন ব্রাউজার নিশ্চয় ব্যবহার করবেন। মনে করুন আপনি মজিলা ফায়ারফক্স কিংবা ক্রোম ব্রাউজারের মাধ্যমে একটি ওয়েব সাইটে হ্যাকিং এর জন্য এ্যাটাক করলেন। এবার আপনি সফল হোন কিংবা বিফল হোন, ইন্টারনেটের সিস্টেম অনুযায়ী-ই আপনার কিছু ব্যক্তিগত তথ্য যেমন ডিএনএস, কুকিজ ইত্যাদি সেই ওয়েব সাইটে রয়ে যায়। আপনি যখন সেই ওয়েব সাইট থেকে বের হয়ে আসবেন, তখন আপনার ব্যবহৃত সেই ব্রাউজার এসব তথ্য ডিলিট করে ওয়েব সাইটকে বন্ধ করতে পারে না, ফলে এসব তথ্য সেই ওয়েব সাইটে রয়েই যায়। ফলে, একজন সাইবার এক্সপার্ট সেই ডিএনএস, কুকিজ ইত্যাদির সাহায্যে আপনার আইপি এ্যাড্রেস কালেক্ট করে আপনাকে ট্রেস করে ফেলতে পারবে।

এথেকে অন্তত বুঝা গেল যে, ইন্টারনেট ব্যবহারের গোড়াতেই গলদ রয়েছে আমাদের। কিন্তু একজন হ্যাকারকে অবশ্যই সব দিক বিবেচনায় নিতে হয়। কাজেই এসব ঝামেলা থেকে মুক্তি পেতে ব্যবহার করতে হবে Tor ব্রাউজার। এটি এমন একটি ব্রাউজার, যা আপনার সঠিক লোকেশন ট্রেস করতে দেবে না। নূন্যতম তিনটি দেশের লোকেশন বাউন্স করিয়ে আপনাকে ইন্টারনেটে প্রবেশ করাবে এবং কোন ওয়েব সাইট ভিজিট শেষে সেই ওয়েব সাইট থেকে বেড়িয়ে গেলে, Tor ব্রাউজার তার নিজ দায়িত্বে আপনার সকল রকম তথ্য ডিলিট করে সেই ওয়েব সাইট থেকে বেড়িয়ে আসবে, ফলে কেউ বুঝতেই পারবে না যে, কে ওয়েব সাইট ভিজিট করেছিল।

তো চলুন, শুরু করা যাক, Tor ব্রাউজার ইন্সট্রলেশন প্রক্রিয়া…

 

১. প্রথমেই আপনার লিনাক্সের ড্রাগন চিহ্নিত মেইন মেনুতে ক্লিক করুন এবং সার্চবারে Fire লিখলেই নিচে Firefox এর আইকন চলে আসবে, এবার Firefox এর আইকনটিতে ক্লিক করে ব্রাউজারটি ওপেন করুন। বুঝতে সমস্যা হলে নিচের পিকচার ফলো করুনঃ

 

২. এবার ব্রাউজারটি ওপেন হলে এ্যাড্রেসবারে Tor ব্রাউজারের অফিসিয়াল সাইটে প্রবেশ করুন। এখান থেকে আমাদেরকে Tor ব্রাউজার ডাউনলোড করতে হবে। লিংকঃ www.torproject.org এবং নিচের Download Tor Browser বাটনে ক্লিক করুন। বুঝতে সমস্যা হলে নিচের পিকচার ফলো করুনঃ

 

৩. এখন আপনি কোন ডিভাইসের জন্য ডাউনলোড করবেন, সেই ডিভাইসের ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করুন। আমরা যেহেতু লিনাক্সের জন্য ব্রাউজারটি ব্যবহার করবো, তাই Download for Linux বাটনে ক্লিক করলেই ডাউনলোড শুরু হয়ে যাবে। বুঝতে সমস্যা হলে নিচের পিকচার ফলো করুনঃ

 

৪. ডাউনলোড সম্পন্ন হলে ব্রাউজারটি বন্ধ করুন এবং নিচের পিকচারের নির্দেশিত লিনাক্সের ড্রাইভ আইকনে ক্লিক করুন, সেখান থেকে Downloads এরপর Open Folder-এ ক্লিক করলেই ডাউনলোড হওয়া Tor ব্রাউজার দেখতে পাবেন। বুঝতে সমস্যা হলে নিচের পিকচার ফলো করুনঃ

 

৫. Tor ব্রাউজারের ডাউনলোডকৃত tar.xz ফাইলটি  নিচের পিকচারের নির্দেশিত অনুসারে Extract করুনঃ

 

৬. Extract হয়ে গেলে Tor ব্রাউজারের মূল ফোল্ডারটি দেখতে পাবেন, সেটা ওপেন করুনঃ

 

৭. এক্ষনে Tor ব্রাউজারের একটি আইকন এবং Browser নামের একটি ফোল্ডার পাবেন। উক্ত ফোল্ডার ওপেন করুনঃ

 

৮. এখানে অনেকগুলো ফাইল ও ফোল্ডার পাবেন, আপনি নিচের দিকে start-tor-browser নামের একটি ফাইল পাবেন, সেটি মাউজের ডাবল ক্লিকের মাধ্যমে ওপেন করুনঃ

 

৯. নোটপ্যাডের মত অনেক লেখা সমৃদ্ধ একটি পেইজ ওপেন হলে, কি-বোর্ডের ডাউন এ্যারো বাটনের মাধ্যমে নিচের পিকচারের মত একটি লেখা দেখতে পাবেন, যেখানে 0 লেখা রয়েছে। কি-বোর্ডের এ্যারোর মাধ্যমে কারসারটি সেই 0 এর উপরে রেখে কি-বোর্ডের Delete বাটনে ক্লিক করে 0 লেখাটি মুছে ফেলুন এবং সেখানে 1 টাইপ করে নোডপ্যাডটি বন্ধ করে দিন। বুঝতে সমস্যা হলে নিচের পিকচার ফলো করুনঃ

 

১০. এবার দেখুন Tor ব্রাউজারের আইকনটিতে একটি পরিবর্তন এসেছে। যদি পরিবর্তন না আসে তাহলে বুঝবেন, নোটপ্যাডের 0 এর স্থলে 1 টাইপ করতে কিছু একটা ঝামেলা হয়েছে। কাজেই, ডাউনলোড হওয়া মূল ফাইলটি রেখে Extract করা ফাইলটি ডিলিট করে দিন এবং পুনরায় Extract এর মাধ্যমে প্রসেসটি সম্পন্ন করুন।

 

১১. এবার Tor ব্রাউজারের আইকনটিকে মাউজের ডাবল ক্লিকের মাধ্যমে ওপেন করুনঃ

 

১২. Tor ব্রাউজারটি ওপেন হলে Connect-এ ক্লিক করুন।

ব্যস আপনার কাজ শেষ। এবার নিশ্চিন্তে আপনি ইন্টারনেটে ঘুরে বেড়ান, আপনি কোথা থেকে নেট ব্রাউজ করছেন, তা কেউ আর খুঁজে পাবে না। কিন্তু একটু সমস্যা রয়েই গেছে। আপনার লোকেশন হয়তো কেউ খুঁজে পাবে না সত্য, কিন্তু যদি কেউ আপনার আইপি এ্যাড্রেস পেয়ে যায়, তাহলে তো Tor ব্রাউজারও আপনাকে লুকিয়ে রাখতে পারবে না। তাহলে উপায় কি? হ্যাঁ, এর জন্য দ্বিতীয় পদক্ষেপটি আপনাকে অবশ্যই নিতে হবে।